শিক্ষাব্যবস্থার ধরনসমূহ ব্যাখ্যা কর

বাংলাদেশে কয় ধরনের শিক্ষা ব্যবস্থা চালু আছে এবং সেগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা কর।

অথবা, বিভিন্ন ধরনের শিক্ষাব্যবস্থা আলোচনা কর।

উত্তর : 

ভূমিকা : শিক্ষা একটি গতিশীল প্রক্রিয়ার নাম। সমাজ-সংস্কৃতির প্রয়োজনেই শিক্ষার প্রক্রিয়ার বা ধরনের পরিবর্তন ঘটে থাকে। আবার অন্যদিকে সমাজ-সংস্কৃতির পরিবর্তনে শিক্ষার ভূমিকা বা প্রভাব লক্ষণীয়। এ কারণে শিক্ষা সম্পর্কে গতানুগতিক ও জনপ্রিয় উক্তি বা প্রত্যয় রয়েছে। যেমন : শিক্ষাই বল, জ্ঞানার্জনই হলো শিক্ষা, শিক্ষাই আলো, জীবন বিকাশের অপর নাম শিক্ষা। তাই শিক্ষা ছাড়া সমাজ ও রাষ্ট্র যেমন অচল ঠিক তদ্রূপ শিক্ষাব্যবস্থা ছাড়া শিক্ষা অচল।

শিক্ষা ব্যবস্থার ধরনসমূহ : রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য প্রয়োজন কিছু নিয়ম-কানুন যা সংবিধানে লিপিবদ্ধ থাকে । আর শিক্ষা পরিচালনার জন্য থাকে শিক্ষা ব্যবস্থার বিভিন্ন ধরন। নিম্নে এ সম্পর্কে আলোচনা করা হলো। বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থার ধরনকে ৩টি ভাগে ভাগ করা যায় । যথা:

১. আনুষ্ঠানিক শিক্ষা, 

২. অনানুষ্ঠানিক শিক্ষা ও 

৩. উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা।

১. আনুষ্ঠানিক শিক্ষা : আনুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যবস্থা হলো পরিকল্পিত, সংগঠিত ও নিয়ন্ত্রিত শিক্ষা ব্যবস্থা। এটি দীর্ঘমেয়াদি ও পূর্ণকালীন শিক্ষা ব্যবস্থা। বাংলাদেশে আনুষ্ঠানিক শিক্ষার প্রকৃতি ও বৈশিষ্ট্য নিম্নে তুলে ধরা হলো : 

(ক) স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা লাভ ।

(খ) শিক্ষা ব্যবস্থা ধারাবাহিক অর্থাৎ নিম্ন স্তর থেকে উচ্চস্তর।

(গ) শিক্ষার বিষয় বিজ্ঞান বিষয়ক, বাণিজ্যিক, মানবিক, চিকিৎসাবিষয়ক, প্রকৌশল, কারিগরি ইত্যাদি।

(ঘ) বিশ্ববিদ্যালয়ে সাধারণ শিক্ষা ছাড়াও বিশেষ বিশেষ শিক্ষা দেওয়া হয়।

(ঙ) শিক্ষা শেষে সনদ, ডিগ্রি প্রদান করা হয়।

২. অনানুষ্ঠানিক শিক্ষা : শিক্ষা কোন কিছুর মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। মানুষ প্রকৃতি, পরিবেশ, সমাজ ও কর্মের মধ্য দিয়ে শুনে, দেখে, অনুকরণ করে নানা কিছু শেখে। আর এ শেখাটাকেই বলে অনানুষ্ঠানিক শিক্ষা। এ সম্পর্কে কবি বলেন, বিশ্বজুড়ে পাঠশালা মোর, সবার আমি ছাত্র নানাভাবে নানা কিছু শিখছি দিবারাত্র ।

৩. উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা : জ্ঞান বা তথ্য প্রবাহের যুগ। জ্ঞান বা তথ্য নানাভাবে প্রবাহিত হচ্ছে। যেমন : খেলাধুলা, সমাজ ও স্বাস্থ্যসেবা, বিভিন্ন শিক্ষামূলক কর্মসূচি নানা কিছু শেখাচ্ছে। এ ধরনের শিখানোর ধরন হলো উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা। উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যবস্থায় প্রধানত কৃষি, স্বাস্থ্য, মৎস্য চাষ, হাঁস মুরগি পালন শিক্ষা ইত্যাদি ।

উপসংহার : শিক্ষা জাতির মেরুদণ্ড। আর শিক্ষার মেরুদণ্ড হলো শিক্ষা ব্যবস্থা। যে দেশের শিক্ষা-ব্যবস্থা যত শক্তিশালী সে দেশ তত উন্নত। আর সময়কে যেমন কোনো ফ্রেমে বেঁধে রাখা যায় না, ঠিক শিক্ষাও কেবল কোনো আনুষ্ঠানিক রূপের মাধ্যমে শেখা যায় তেমনটি নয়। এটি সময়ের মতো বাঁধাহীন। সব জায়গায় শিক্ষা ছড়িয়ে রয়েছে। তাইতো শিক্ষাব্যবস্থা বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *